বগুড়ার-সংবাদমহাস্থান

ইউপি নির্বাচনে গোকুল ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ ঃ চায়ের টেবিলে ঝড়

 

আব্দুৃল বারী মহাস্থান(বগুড়া)প্রতিনিধি : ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এলাকার চায়ের দোকান গুলোতে চলছে আলাপ চারিতা কে হবে, কে কার চেয়ে এগিয়ে। অন্যান্য ইউনিয়নের ন্যায় এ তালিকায় বাদ নেই বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের সম্ভাব্য প্রার্থীরাও। অত্র ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডে সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, বর্তমান ইউপি সদস্যগণ ও গতবারের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীরা ছাড়াও নতুন নতুন সম্ভাব্য প্রার্থীরা সময় পেলেই এলাকার ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময়, পরিবারের খোঁজ খবর নেয়ার মাধ্যমে কৌশলে তাদের স্ব- স্ব পরিচিত তুলে ধরা ও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে।

ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের (চাঁদমুহা) এ বারের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় যারা আছেন তারা হলো বর্তমান ইউপি সদস্য ফয়েজ উদ্দিন, সাবেক ইউপি সদস্য আলী রেজা তোতন, নতুন মুখ বজলুর রহমান, শ্রী স্বপন। সম্ভাব্য প্রার্থী আলী রেজা তোতন গোকুল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য হওয়ায় এলাকায় তার একটি শক্ত অবস্থান রয়েছে বলে জানা যায়। নির্বাচনে তিনি জয়ী হবেন বলে আশা করেন। অপর দিকে নতুন মুখ বজলুর রহমান একজন ষ্টিলের ফার্ণিচার ব্যবসায়ী। দলমত নির্বিশেষে এলাকার মানুষ ও যুব সমাজ তার সাথে রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। সে জন্য তিনি নির্বাচনে জয়ের বিষয়ে আশাবাদি। অপরদিকে শ্রী স্বপন একজন হোমিও চিকিৎসক হিসেবে এলাকায় তার একটি ভাল পরিচিতি থাকায় তিনিও নির্বাচনে জয়ী হবেন বলে আশাবাদী।

অপরদিকে ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডে (সরলপুর) সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলো বর্তমান ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন, সাবেক ইউপি সদস্য হবিবর রহমান ও আব্দুল মান্নান। সাবেক ইউপি সদস্য হবিবর রহমান বেশ কয়েক মেয়াদে ইউপি মেম্বার হিসেবে দায়িত্ব পালন করায় এলকায় তার নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে বলে তিনি জানান। অপর দিকে আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী আব্দুল মান্নান গত নির্বাচনে নিকটতম প্রতিদ্বন্দী ছিলেন। তিনি জানান নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পরও এলাকার মানুষের সুখে দুখে পাশে ছিলেন এবং আছেন। তিনি ব্যক্তি উদ্যোগে এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডে অনুদান দিয়ে থাকেন। সে কারনে এলাকার মানুষ তার সাথে রয়েছেন বলে তিনি দাবী করেন। অপরদিকে বর্তমান ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন এবার নির্বাচন করবেন কি করবেন না তা নিয়ে দ্বিধাদন্দে রয়েছেন বলে তিনি জানান।

এদিকে ইউনিয়নের ৩ নং ওর্য়াডে ( পলাশবাড়ী) সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন বর্তমানে ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন, সমাজ সেবক ছালামত আলী, সাবেক ইউপি সদস্য ছামছুল আলম, ইউনিয়ন যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল খালেক, মো. সমাজ সেবক মোস্তাক আহম্মেদ। বর্তমান ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, নির্বাচিত হয়ে এলাকার উন্নয়নের জন্য সাধ্য অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছেন এবং আগামিতেও এলাকার ও মানুষের জন্য কাজ করে যাবেন বলে অঙ্গিকার করেন। অপর দিকে গত নির্বাচনে জয়ী না হলেও ছালামত আলী এলাকার বিভিন্ন সমাজ সেবামুলক কর্মকান্ডে নিজেকে জড়িত রেখেছেন এবং সাধ্য অনুযায়ী সমাজের উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড পরিচালনা ও সহযোগিতা দিয়ে আসছেন। যে কারনে এবার তিনি জয়ের বিষয়ে অনেকটা আত্মবিশ্বাসী বলে জানান। এদিকে সাবেক ইউপি সদস্য সামছূল আলমও এলাকার একজন সজ্জন মানুষ হিসেবে পরিচিত। তারও একটি শক্ত ভীত রয়েছে বলে জানা যায়। এছাড়াও যুবদলের আব্দুল খালেক এলাকার গরীব দুখী মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা দিয়ে আসছেন দাবী করে নির্বাচনে এলাকার মানুষ তার সাথে রয়েছেন বলে তিনি জানান।

বলা যেতে পারে নির্বাচনের হাওয়া ঐসব ওয়ার্ডে এই মহুর্তে জনগণের গায়ে খুব বেশি প্রভাব না পড়লেও সম্ভাব্য প্রার্থীদের শরীরে ঠিকই লেগেছে। যে কারণে সম্ভাব্য প্রার্থীরা আগে ভাগেই তাদের পরিচিতি ও প্রচারণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন এবং ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষনের জন্য বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে ভীড় জমাচ্ছেন।

Related Articles

Back to top button
Close