জাতীয়

এসআই আকবর গ্রেফতার

সিলেটের বন্দর বাজার ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনে রায়হান উদ্দিন আহমদের মৃত্যুর ঘটনায় সাময়িক বহিষ্কৃত উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়া নিজের ইচ্ছায় পালিয়ে যাননি। তাঁর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তাঁকে দুই মাস পালিয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন তিনি।

সোমবার দুপুরে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লক্ষ্মীপ্রসাদ ইউনিয়নের ডোনা সীমান্তে খাসিয়াদের কাছে আটক অবস্থায় এ দাবি করেন আকবর। এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে

আকবরের দাবি, ‘ভাই, আমি খুনি না। ইচ্ছে করে আমি একা (রায়হান উদ্দিন আহমদ) মারিনি। রিমান্ড দিছিল পাঁচ-ছয়জন। এজন্য মরে গেছে ভাই। মারছিল জনগণ, আমরা হাসপাতাল নিয়ে গেছিলাম। কিন্তু ওখান থেকে সে (রায়হান) মরে গেছে।’

তাহলে ঘটনার পর পালানোর কারণ জানতে চাইলে আকবর বলেন, ‘আমি ভাগে আসছিলাম যে, বলছে সাসপেশন (বরখাস্ত) করছে। গ্রেপ্তার করতে পারে। (ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা) বলেছে, দুই মাস পর সব ঠাণ্ডা হয়ে যাবে। এরপর গেলে হ্যান্ডেল করা যাবে। আমি অন্য কোনো কারণে ভাগি নাই।’

সিলেট নগরীর আখালিয়া এলাকার নেহারীপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে রায়হান উদ্দিন আহমদকে (৩৩) গত ১০ অক্টোবর রাতে বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে হত্যা করা হয় বলে পুলিশের তদন্তেই বেরিয়ে এসেছে। পরের দিন ১১ অক্টোবর সকালে তাঁর লাশ পায় পরিবার। পরে ওই দিন রাতে নিহত রায়হানের স্ত্রী বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। স্বজনদের অভিযোগ, ১০ হাজার টাকা না পেয়ে রায়হানকে পুলিশ হেফাজতে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনার পর ১২ অক্টোবর বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া, এসআই টিটু চন্দ্র দাস, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ ও তৌহিদ মিয়াকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ ছাড়া প্রত্যাহার করা হয় সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে। পরে ২১ অক্টোবর মামলার আলামত নষ্টের অভিযোগে এসআই হাসানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close