সারাদেশ

ক্লিনিক বয় দিয়ে হারনিয়া অপারেশনে ছাত্রীর মৃত্যু ঘটনায় উত্তেজনা ঃ

 

এম এ হক, দিনাজপুর প্রতিনিধি। দিনাজপুরের রাণীরবন্দরের কথিত পলিটেক হাসপাতালে ক্লিনিক বয় দিয়ে হারনিয়া অপারেশন করতে গিয়ে নাজরিন আক্তার (১০)নামে এক চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যুর খবরে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, গত ১০ই জুন বেলা আড়াই টায় রাণীরবন্দরের বাকালি পাড়া গ্রামের নজরুল ইসলামের কন্যা স্থানীয় চাইল্ড কেয়ার স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী নাজরিন আক্তার (১০) হারনিয়া রোগে আক্রান্ত হলে উক্ত পলিটেক হাসপাতালে তাকে অপারেশন বিভাগে ভর্তি করা হয়। গত শুক্রবার রাত অনুমান সাড়ে ১০টায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পক্ষে পরিচালক দেবেশ চন্দ্র রায় ও রেজাউল করিম রেজা-র উপস্থিতিতে হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় দিয়ে নাসরিনের অপারেশন চালালে নাজরিনের চিৎকারে এলাকা কম্পিত হয়ে যায়, কিছুক্ষনের মধ্যে প্রচুর রক্তক্ষরণের মধ্য দিয়ে তার মৃত্যু ঘটলে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সু-কৌশলে মটর বাইকের সাহায্যে জিয়া হার্ড ফাউন্ডেশনে নিয়ে যাওয়ার কথায় তারা পালিয়ে যায়, এ সময় ওই হাসপাতালে ৬জন রোগী ভর্তি ছিল বলে জানা গেছে। স্কুল ছাত্রী নাজরিনের মৃত্যুর ঘটনায় অন্যান্য রোগীরা ভয়ে স্থান ত্যাগ করলেও তারা দু-এক জনকে জোর করে আটকে রেখে হাসপাতালে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। উলে­খ্য যে, রাণীরবন্দরের পলিটেক হাসপাতালে অ-দক্ষ ডাক্তার দ্বারা অকাল মৃত্যুর খবর শোনা গেলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে নীরব, তবে ওই হাসপাতালটি নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে, এ ব্যাপারে গতকাল থানা পুলিশ সর্বদা সতর্ক অবস্থান করছিল। এদিকে, নাজরিনের মৃত্যু ঘটনাটি মীমাংসা করার জন্য গতকাল শনিবার উভয় পক্ষের মধ্যে এক সমঝোতা হয়েছে । এ ব্যাপরে ১নং নশরতপুর (রাণীরবন্দর) ইউ’পি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর ইসলাম নুরু এবং ২নং সাতনালা ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান এক অদৃশ্য কারণে মীমাংসার সাফল্য অর্জন করেছে বলে জানা গেছে।
উলে­খ্য যে, অত্র পলিটেক হাসপাতালটি সরকারীভাবে কোন অনুমোদন নেই, নেই কোন অভিজ্ঞ ডাক্তার বা নার্স।

Related Articles

Back to top button
Close