সারাদেশ

চলছে ট্রাফিক সপ্তাহ,বাড়ছে দুর্ঘটনা!নিয়ম মানছে না বাস চালক-হেল্পার

  ফারুক মোল্লা , যাত্রাবাড়ী, ঢাকা থেকে ঃ

Exif_JPEG_420
ঢাকা মহানগরীর জনসাধারণকে ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উদ্বুদ্ধকরণ এবং ট্রাফিক শৃঙ্খলার উন্নতিকল্পে ১৭ মার্চ ২০১৯ থেকে ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ শুরু করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ’র ট্রাফিক বিভাগ।ট্রাফিক সপ্তাহ সঠিক ভাবে পালনের লক্ষ্যে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্ট এ চেকপোস্ট বসানো হয়।সাধারণত চেকপোস্ট গুলোতে মালবাহী রিক্সা-মোটরসাইকেল আর কিছু সংখ্যক অন্যান্য গাড়ী গুলোকেই ট্রাফিক আইনের আওতাধীন আনা হলেও বাকি সব যানবাহনই ট্রাফিক আইনের বাহিরে।
আজ দুপুর প্রায় ২টার দিকে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ বাসডিপো যাত্রাবাড়ী তে লক্ষ্য করে দেখা যায় বাস গুলো বাসস্টপেজ গুলো ছেড়ে যাত্রাবাড়ীর থানার সামনে থেকে বাস দাঁড়িয়ে থেকে গাড়ি চলাচলের বিঘ্নঘটিয়ে যাত্রী উঠানো হয়।
যেখানে সেখানে বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করা,অভারস্পীড এ গাড়ী চালনো ইত্যাদি ভাবে ট্রাফিক আইন ভেঙ্গে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে বাস চালকরা। এতে করে প্রাণ হাড়াচ্ছে সাধারণ মানুষ এবং ইস্টুডেন্টরা।
গত কাল ১৯শে মার্চ সুপ্রভাত বাসের চাপায় বাংলাদেশ প্রফেশনাল ইউনিভার্সিটির আবরার (২০) নামের এক শিক্ষার্থী নিহত হন।আবরার নিহতের প্রতিবাদে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আজ সকাল ৮টা থেকে আন্দোলন করে।আন্দোলন থেকে দূরে থাকে নি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও।এতে করে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থান গুলোর যোগাযোগব্যবস্থা অচল হয়ে পড়ে।
শিক্ষার্থীরা ৮দফা দাবি নিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন যার প্রথম দফা ছিল-
পরিবহণ সেক্টরকে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত করতে হবে এবং বাস চালকের লাইসেন্স সহ সকল প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র চেক করতে হবে।
২।আটককৃত চালক ও সম্পৃক্ত সকলকে দ্রুততম সময়ে সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনতে হবে।
৩।আজ থেকে ফিটনেস বিহীন বাস ও লাইসেন্স বিহীন চালককে দ্রুততম সময়ে অপসারণ করতে হবে।
৪।ঝুঁকিপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় সকল স্থানে আন্ডার পাস,স্পীড ব্রেকার এবং ফুড ওভার ব্রিজ নির্মণ করতে হবে।
৫।সড়ক হত্যার সাথে জড়িত সকলকে সর্বোচ্চ আইনের আওতায় আনতে হবে।(চলমান আইনের পরিবর্তন করে)
৬।দায়িত্ব অবহেলাকারী প্রশাসন ও ট্রাফিক পুলিশকে স্থায়ী অপসরণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা।
৭।প্রতিযোগীতামূলক গাড়ী চলাচল বন্ধ করে নিদিষ্ট স্থানে বাসস্টপ এবং যাত্রী ছাউনি করার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে।
৮।ছাত্রদের হাফপাস অথবা বাস সার্ভিস চালু করতে হবে।
শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে আরো বলেন,আমরা কোন আশ্বাস শুনতে চাই না,আমাদের দাবি বাস্তবায়ন চাই।

Related Articles

Back to top button
Close