সারাদেশ

ঠাকুরগাঁওয়ে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে এলজিডি কর্মীকে ধর্ষণ ও গর্ভপাতের অভিযোগ

আব্দুল কাদের জিলানী, রুহিয়া, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাও সদর উপজেলার রুহিয়া থানার ২১ নং ঢোলারহাট ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক বাবুল হোসেন (বাবলু) বিরুদ্ধে এলজিডি প্রকল্পের আরএমপি প্রোগ্রামের কর্মীকে ফুসলিয়ে ধর্ষন অতঃপর ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ময়না বেগম (৩০) নামে মহিলার গর্ভপাত করানোর এক অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানাগেছে, ময়না বেগম একই ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের মৃত. আইনুল হকের স্ত্রী। ওই বিধবার স্বামী ৭ বছর পূর্বে মারা গেছে বলে এলাকাবাসির সূত্রে জানা যায় ।

আরো জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ঢোলারহাট ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের বগুড়া পারা এলাকার এলজিডি কর্মীকে বিভিন্ন সময়ে সহযোগিতা করার সুযোগ নিয়ে ঢোলারহাট ইউনিয়ন যুবলীগর সাংগাঠনিক সম্পাদক বাবুল হোসেন (৪০) ৩ বছর যাবৎ ওই, বিধবার সঙ্গে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধভাবে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। বিভিন্ন সময়ে অবৈধভাবে মেলামেশা করায় ওই বিধবা এ পর্যায়ে অন্তঃসত্বা হয়ে পড়ে। এতে ওই বিধবা বাবলুকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে সাংগাঠনিক সম্পাদকের বাবলু রাজি না হয়ে বিধবাকে গর্ভপাত করানোর শর্ত আরোপ করে এবং জীবননাশের হুমকি প্রদান করে বলে বিধবা জানায় । এদিকে গত ২৫ সেপ্টেমবর সোমবার ধর্র্ষিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে গর্ভপাত করান যুবলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদকের নির্দেশে ঢোলারহাট এলাকার এক গ্রাম্য ধাত্রি নির্মলা টপ্য মিনা ।

এতে গৃহবধূর রক্তক্ষরন শুরু হলে তাকে মমুর্ষ অবস্থায় মঙ্গলবার বিকেলে ঠাকুরগাঁয়ের আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

উল্লেক্ষ্যযে, ইতি পূর্বে নির্মলা টপ্য মিনা বিরুদ্ধে একাধিক গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে ধর্ষিতা অভিযোগ করে বলেন ,ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা বাবলু বিয়ের প্রলেণাভন দেখিয়ে দীর্ঘ ৩ বছর যাবৎ তাকে ফুসলিয়ে ধর্ষন করে আসছে এবং তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে গর্ভপাত পরীক্ষা করার নাম করে তার গর্ভপাত করানো হয়।

এদিকে, ২১নং ঢোলারহাট ইউনিয়নের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সুরেশ চন্দ্র রায় দৈনিক আমার সংবাদকে জানান, বাবুল হোসেনের বিরুদ্ধে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন প্রকার চাঁদা বাজি, গুন্ডামি ও ধর্ষন সহ অপকর্মে লিপ্ত থাকায় তাকে দল থেকে বহিস্কারের প্রস্তুতি চলছে ।

এ ব্যাপারে রুহিয়া থানার ওসি প্রদীপ কুমার রায় সাংবাদিকদের জানান,ঢোলারহাট ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা বাবুলের বিরুদ্ধে ময়না বেগম গত ২৬-০৯-২০১৭ইং তারিখে রুহিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ৯(১), ৩১৩ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে যার মামলা নং- ০৭ ।

ঘটনাটি এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করায় প্রশাসনের নেকদৃষ্টি কামনা করছা এলাকার সচেতন মহল ।

Related Articles

Back to top button
Close