সারাদেশ

ঠাকুরগাঁও এখন অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর

আরিফুজ্জামান আরিফ জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও ।। শীতের আগমনে প্রকৃতি সেজেছে নতুন সাজে। প্রকৃতির এ নতুন রূপটাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে অতিথি পাখির দল। অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর হয়ে উঠেছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈল উপজেলার রামরাই দিঘি । শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবছরের মতো এবারও অতিথি পাখির আগমন ঘটেছে এ রামরাই দিঘিতে । প্রতিদিন এলাকার মানুষের ঘুম ভাঙে অতিথি পাখির কিচিরমিচির শব্দে। হাজার হাজার পাখির আগমনে পুরো দিঘি এলাকা এখন পাখির রাজ্যে পরিণত হয়েছে। লেকজুড়ে হাজার হাজার লাল পদ্মের মাঝে পাখিদের ওড়াউড়িতে চোখ জুড়িয়ে যায় ঘুরতে আসা পাখি প্রেমীদের।

প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাসের পরে হিমালয়ের উত্তরে শীত নামতে শুরু করার ফলে উত্তরের শীত প্রধান অঞ্চল সাইবেরিয়া, মঙ্গোলিয়া, চীন, নেপাল, জিনজিয়াং ও ভারত থেকে পাখিরা উষ্ণতার খোঁজে পাড়ি জমায় বিভিন্ন নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে। এ সময় দক্ষিণ এশিয়ার নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চল বাংলাদেশে হাজারো অতিথি পাখির আগমন ঘটে।

মূলত অক্টোবরের শেষ ও নভেম্বরের প্রথম দিকেই অতিথি পাখিরা বাংলাদেশে আসে। আবার মার্চের শেষ দিকে ফিরে যায় আপন ঠিকানায় ।

সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গেই রামরাই দিঘির পাড়ে লিচু গাছে আশ্রয় নেয় অতিথি পাখিরা। ভোর হলেই পুনরায় খাবারের সন্ধানে রামরাই দিঘিতে ভিড় জমায় তারা।

প্রতি বছর শীতের শুরুতে হাজার হাজার মাইল পাড়ি দিয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে আমাদের দেশে আসে বাহারি রংয়ের অতিথি পাখি । পাখিরা সেই সাইবেরিয়ায় সহ বিভিন্ন দেশের শীতের কবল থেকে রেহাই পেতে অভয়াশ্রম হিসেবে বেছে নেয় বাংলাদেশকে। এদেশের নদ-নদী, হাওর-বাওড় এরা যেন খুব ভালোবাসে। এগুলো যেন সুদীর্ঘকাল ধরে পরিচিত তাদের কাছে। রামরাই দিঘি এলাকার বাসিন্দা কামাল সাহেব জানান, সারাদিন অনেক মানুষ আসে এসব অতিথি পাখি দেখার জন্য। এদের কলতানে মুখর হয়ে আছে রামরাই দিঘি এলাকা। কামাল সাহেব বলেন, কেউ যেন এদের শিকার করতে না পারে সে বিষয়ে আমরা এলাকাবাসী সজাগ আছি। ঠাকুরগাঁওয়ের পাখিপ্রেমী ফজলে রাব্বি জানান, আমাদের এখানে যে অতিথি পাখি আসছে তার নাম ছোট সরালি। অতিথি পাখিরা আমাদের দেশে অতিথি হয়ে আসে। অতিথি পাখিরা যাতে আমাদের এখানে নির্ভয়ে থাকতে পারে সে জন্য প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। অতিথি পাখির আগমনে এ এলাকার যেমন সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায় তেমনি এরা প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় সহযোগিতা করে। তাই অতিথি পাখি শিকারকে আমরা সবাই না বলি। ঠাকুরগাঁও জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম জানান, এই ছোট সরালি জাতের অতিথি পাখি আমাদের দেশে প্রতি শীতেই আসে। এরা এখানে এসে ডিমও দেয়। অতিথি পাখি শিকার করা দন্ডনীয় অপরাধ। তাই সকলকে অতিথি পাখি শিকার না করার আহ্বান জানান তিনি।

Related Articles

Back to top button
Close