বগুড়ার-সংবাদ

দুর্গম এলাকার বানভাসিদের মাঝে একদল তরুন

গোলাম,সংবাদদাতাঃ
লাইটশীপ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সোনাতলা, বগুড়ার একদল মানবতাবাদী তরুনদের প্রচেষ্টা এবং নিজস্ব অর্থায়নে সোনাতলা, সাড়িয়াকান্দি, সাঘাটা এবং জামালপুরের কিছু অংশের মাঝে প্রায় সারে তিনশত বানভাসি মানুষদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরন করা হয়। লাইটশীপ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান জনাব গোলাম রব্বানী রোমান বলেন, হঠাৎ করেই যমুনার ভয়াবহ পানি বৃদ্ধিতে এ এলাকার মানুষ কঠিন বিপদের মধ্যে পরে যায়, বিশেষ করে চরাঞ্চলের মানুষ গুলো জিনব-মরনের ঝুকি নিয়ে দিন পার করছে। এমতাবস্থায় আমরা আর বসে থাকতে পারি নি। হঠাৎ করেই সিদ্ধান্ত নিয়ে কাছের কিছু বন্ধু-বান্ধবদের জানাতেই তারাও খুব উৎসাহের সাথেই এগিয়ে এলো। বিশেষ করে সাহারুল ইসড়াম লাজু ভাই এবং কাউন্সিলর তাহেরুল ইসলাম এর ছেলে তাজমির ইসলাম তাজ। এটি ছিলো আমাদের সম্পূর্ন নিজস্ব অর্থায়ন। আমরা এবং আমাদের বন্ধুদের মাঝে কালেকশন করে চরাঞ্চলের প্রায় সারেতিনশত পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরন করি। ত্রাণসামগ্রীতে ছিল- চিরা, মুড়ি, গুর, স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরন ট্যাবলেট, বিস্কিট ইত্যাদি। এছাড়াও জরুরী চিকিৎসা সেবা এবং প্রাথমিক ঔষদপত্রাদিও দেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, ত্রাণ হয়ত অনেকেই দিচ্ছে কিন্তু আমরা যেভাবে জিবনের ঝুকি নিয়ে এতদুরে গিয়েছি যেখানে এখন পর্যন্ত নাকি কেহ যায় নি। আর আমরা নিজেরা পানিতে নেমে সাতরিয়ে সাতরিয়ে প্রতিটা পরিবারের কাছে গিয়ে দিয়েছি। তাতে পরিবার গুলোও খুব খুশি। কারন, অনেকি কেবল দুই/একজনের হাতে দিয়ে আসে অন্যদের দেবার জন্য কিন্তু তাতে সবাই পায় না। সমবন্টন হয় না। আমরা সেক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী কার্যক্রম পরিচালনা করেছি যাতে সবাই খুশি আলহামদুলিল্লাহ।

ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আরও বলেন, আমাদের কার্যক্রম থেমে নেই। এবার আমাদের বাড়ির আশ-পাশেই প্রচুর পানি হয়েছে। জনজীবন বিচ্ছিন্ন। সুতরাং আমরা এবার এদিকে মনোযোগী হব ইনশাল্লাহ। আমাদের কালেশন এবং ত্রাণ বিতরন ও সেবা অব্যাহত থাকবে ইনশাল্লাহ। সেই সাথে যারা আমাদের সাথে থেকে, অর্থ, শ্রম, মেধা, উৎসাহ ইত্যাদি দিয়ে সহযোগীতা করেছেন এবং করছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

উপস্থিত বিশেষ ব্যক্তিদের মাঝে আরও ছিলো- সাঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের স্ত্রী জনাব সাদিয়া বিশ্বাস, জুমারবাড়ি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দুজন বিএসসি শিক্ষক জনাব মাহমুদ স্যার এবং জাহাঙ্গীর আলম স্যার, হলদিয়া স.প্রা.বি. এর সাবেক শিক্ষক জনাব আঃ কাফি, হলি টাচ স্কুল এন্ড কলেজের সিক্ষক জনাব সিনথিয়া আরফিন, আন-নূর সান্টিফিক মাদরাসার কো-অর্ডিনেটর জনাব ফরিদুল ইসলাম, পাঞ্জেরি একাডেমি স্কুলের উপাধ্যক্ষ জনাব আনিছুর রহমান, রবিউল আউয়াল, রেজাউল, সজল কুমার, নুরুন্নবী ইসলাম অসিম, জিল্ললুর রহমান মুখ।

Related Articles

Back to top button
Close