বগুড়ার-সংবাদসোনাতলা

সোনাতলায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ভাংচুর আহত ৪ ॥ থানায় চাঁদাবাজির মামলা গ্রেফতার ১

সংবাদ আজকাল ডেক্স ঃ বগুড়া সোনাতলায় চাঁদার দাবিতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুরসহ মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় সহদর ভাইসহ ৬ জন আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ৯ জনকে আসামী করে চাঁদাবাজি, ভাংচুরসহ বিভিন্ন ধারায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই ঘটনার মূল নায়ক একাধিক মামলার আসামি আরিফুর রহমান পলাশকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছে। মামলা ও এলাকাবাসীর সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সৈয়দ আহম্মদ কলেজ ষ্টেশন বাজারে অবস্থিত শিহিপুর (জাহানেরপাড়া) এলাকার আব্দুল বাছেদ মোল্লার পুত্র রিয়াজুল করিমের ‘ঝর্না ফার্মেসী ও ঝর্না ইলেকট্রনিক্স’ দোকানে শিহিপুর পশ্চিম পাড়া এলাকার নাজির উদ্দিনের পুত্র আরিফুর ইসলাম পলাশ ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। পলাশের দাবিকৃত চাঁদার টাকা দিতে দোকান মালিক অস্বীকৃতি জানায়। এতে পলাশ ক্ষিপ্ত হয়ে ৭ জুন দুপুর সাড়ে ১২ টায় সন্ত্রাসি প্রকৃতির যুবকদের নিয়ে ওই ঝর্না ফার্মেসী ও ঝর্না ইলেকট্রনিক্স দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এ সময় দোকান মালিক বাধা দিলে তাদেরকেও বেদম মারপিট করে। এতে সহদর ভাই রিয়াজুল করিম (৪৫), রেজাউল করিম (৪০), আল মামুন (৩০) ও এনামুল হক (২২) গুরুতর আহত হয়। তাদেরকে রক্ষা করতে ওই এলাকার আবুল কালাম (৪০), শাহিন (৩২) ও মিন্টু (৫০) এগিয়ে এলে তারাও মারপিটের শিকার হয়। এ ঘটনায় রিয়াজুল করিম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। পুলিশ ওই মামলামুলে আরিফুর ইসলাম পলাশকে গ্রেফতার করে গতকাল শনিবার জেল হাজতে প্রেরণ করে। স্থানীয় লোকজন জানান, পলাশ বাহিনীর দাপটে পুরো এলাকাবাসী কোনঠাসা। কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। এ ব্যাপারে সোনাতলা থানার ওসি মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরী জানান, পলাশের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close