বগুড়ার-সংবাদসারাদেশ

সোনাতলায় স্বামীর ছুরির আঘাতে স্ত্রী আহত


ষ্টাফ রির্পোটার আব্দুর রাজ্জাকঃ
বগুড়া সোনাতলা উপজেলা মধুপুর ইউনিয়নের শালিখা উত্তরপাড়া গ্রামের খলিল বেপারীর মেয়ে শাকিলা খাতুন ১ সন্তানের জননী স্বামীর ছুরির আঘাতে আহত হয়ে সোনাতলা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত শাকিলা ও তার পরিবার সুত্রে জানাযায়, গত ৬ বছর আগে সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ী ইউনিয়নের কামারপাড়া গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে আল-আমিন (২৪) এর সহিত বিবাহ হয়। বিবাহের ১বছর পর থেকেই শাকিলার সংসারে নেমে অশান্তির ঝর। স্বামী আল-আমিন রাজ মিস্ত্রির কাজ করে। অধিক সময়ে বাড়ির বাহিরে দিন কাটায় করে নেশা। মাঝে মধ্যে নেশা করে বাড়ি ফিরলে স্ত্রী শাকিলা নিশা করতে নিষেধ করলে তাদের মধ্যে বাধেঁ ঝগড়া। এর পরও সংসার জীবনে তাদের একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। সব কিছু ভুলে শাকিলা স্বামীর সংসারে থাকলেও ঘটনার সুত্রে সংসারের টুকি-টাকি বিষয় নিয়ে শ্বশুর-শাশুরী, যা, বিভিন্ন ভাবে শাকিলার প্রতি চালায় নির্যাতন। এ নিয়ে শাকিলার বাবা-মা
ওই গ্রামে মাথা মুরুব্বিদের একাধিকবার বিচার শালিস করে। এর পরেও সংসারের কন্যা সন্তানের কথা চিন্তা করে শাকিলা সব কিছু মেনে নিয়ে স্বামীর সংসার করতে থাকে। এরই একপর্যায়ে নেশাগ্রস্থ স্বামী আল-আমিন গত ২ শে রমজান আবারও শাকিলার সাথে কথা কাটা-কাটির একপর্যায়ে তার মাথায় মোবাইল ফোন দিয়ে আঘাত করলে, রক্তাক্ত জখম প্রাপ্ত হয় শাকিলা। এর পরে শাকিলা তার বাবার বাড়িতে
ঈদে বেড়াতে আসে। পরে শাকিলার বাবা-মা মেয়ে জামাই ও তার পরিবারকে ঈদের দাওয়াত দেয়। দাওয়াত শেষে স্বামী আল-আমিন শাকিলা কে বাড়ি নিয়ে যেতে চাইলে শাকিলা আরও কদিন থাকবে বলে স্বামীকে জানায়। এরপরে গত বুধবার রাত আনুমানকি ৯টায় অর্তর্কীত ভাবে আল-আমিন শ্বশুর বাড়ি এসে ঘরে ঢুকে পিছন থেকে শাকিলার মুখ চেপে ধরে কোন কিছু না বলে তার পেটে টিপ চাকু (ছুরি) দিয়ে আঘাত করতে চাইলে শাকিলা একটু সরে গেলে আল-আমিন শাকিলার ডান পায়ের হাটুর নিচে আঘাত করে দেীড়ে চলে যায়। এসময় শাকিলার চিৎকারে তার বাবা-মা এগিয়ে এসে শাকিলাকে রক্তাক্ত অবস্তায় উদ্ধার করে ওই রাতেই সোনাতলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এরির্পোট লেখা অবদি সোনাতলা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিলো।

Related Articles

Back to top button
Close