শিবগঞ্জের দোপাড়া সর:প্রাথ: বিদ্যালয়ে আল-এমরানের শহীদ মিনার নির্মাণ

rafel shahabrafel shahab
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  11:00 AM, 23 December 2019

শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের দোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইউপি সদস্য আল-এমরান খন্দকারের নিজস্ব উদ্যেগে শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছে।


জানা যায়, উপজেলার পল্লী এলাকা আটমূল ইউনিয়নে ১৯০১ সালে প্রতিষ্ঠিত দোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। উপজেলার প্রাথমিকের প্রাচীনতম প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন যাবত অবহেলিত থেকেই এলাকার শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছিল। উপজেলা থেকে দূরুত্ব বেশি হওয়ায় এমনকি জাতীয় দিবসগুলোতে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া শিক্ষার্থীদের মাঝে ছিল শুধু বইয়ের পাতাতেই। এরই একপর্যায়ে ২০০১ সালে অবহেলিত বিদ্যালয়টির কোন রকম পদ-পদবী ছাড়াই অবকাঠামো ও শিক্ষার মান উন্নয়নের দায়িত্বভার গ্রহণ করে এলাকার কৃতি সন্তান ও শিক্ষানুরাগী বর্তমানে ইউপি সদস্য, উক্ত বিদ্যালয়ের সহ-সভাপতি, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী আল-এমরান খন্দকার।

সে থেকেই বিদ্যালয়টির অবকাঠামো উন্নয়ন, ফ্যান, ব্রে , শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ, কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা, নিয়মিত অভিভাবক সমাবেশ, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজনসহ সার্বিক ক্ষেত্রে বৃহত্তর ভূমিকা রাখেন আল-এমরান। আল-এমরান ইউপি সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পরই এলাকার শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে উজ্জীবিত করে গড়ে তুলতে পরিকল্পনা গ্রহণ করে বিদ্যালয়টিতে একটি শহীদ মিনার নির্মাণের।

এর প্রেক্ষিতে চলতি বছর সম্পূর্ণ নিজস্ব উদ্যেগ ও অর্থায়নে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় দোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে সবার স্বপ্নের শহীদ মিনার। এব্যাপারে ইউপি সদস্য আল-এমরান বলেন, শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বৃদ্ধির জন্যেই পরিকল্পনা করে শহীদ মিনারটি নির্মাণ করি। আশা করে এ থেকে শিক্ষার্থীরা দেশপ্রেমে আরো উদ্ভুদ্ধ হবে। আমি এভাবেই যেন এলাকার মানুষের পাশে থাকতে পারি সেব্যাপারে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করি।


এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ভাষা শহীদদের স্মরণে এই অজোপাড়া গ্রামে শহীদ মিনার নির্মাণ করায় বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ইউপি সদস্য আল-এমরানকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। শহীদ মিনার নির্মাণে আল-এমরানকে সহযোগিতা করেন, স্থানীয় সেকেন্দার আলী মন্ডল, বুলবুল ইসলাম তালুকদার। এদিকে শহীদ মিনারটি নির্মাণে স্থানীয় জনগণ আল-ইমরানের প্রতি ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :